Breaking News

মোবাইল ব্যাটারিতে চার্জ থাকছে না? মাত্র ২ মিনিটে জেনে নিন! মোবাইলের ব্যাটারি ভালো রাখার উপায়…

মোবাইলের ব্যাটারি ভালো রাখার উপায়…

মোবাইলফোন বা মুঠোফোন, আমাদের দৈনিন্দিন কাজের একটি গুরুত্বপূন্য অংশের টুলস ও বলা যায়। মুঠোফোনে বহন যোগ্যতার কারণে এটি আমাদের একটি গুরুত্বপূন্য অংশে পরিণত হয়েছে। আর এই বহন যোগ্যতার পূর্ণরুপ দিয়েছে মোবাইলের ব্যাটারি। ব্যাটারি যুক্ত থাকায় যন্ত্রটি বহনযোগ্য। ব্যাটারি যদি সঠিকভাবে চার্জ না করা হয়ে থাকে তাহলে কম সময়ে অকেজ বা ক্ষমতা হ্রাস হতে পারে। এর ক্ষমতা হ্রাস হয়ে যাওয়া মানে ফোনের বহনযোগ্যতা কমে যাওয়া। প্রতিটি ব্যাটারির নির্দিষ্ট আয়ুষ্কাল আছে। ফোন ব্যবহার, এর চার্জ পদ্ধতি, এ্যাপস জনীত কারণে এর আয়ু হ্রাস পায়।

আমরা সবাই কম বেশি স্মাট ফোন ব্যাবহার করি, কিন্তু আমাদের মধ্যে অনেকেই জানি না কিভাবে ফোনটি চার্জ দিতে হবে। কোন চার্জার দিয়ে চার্জ দেয়া উচিত, কোন চার্জার দিয়ে চার্জ দেওয়া উচিত নয়।

 

ফোনের অর্জিনাল চার্জার (ফোনের নিজেস্ব চার্জার) দিয়ে চার্জ দেওয়াঃ

ফোনের সাথে প্রাপ্ত চার্জারে চার্জ দেওয়া হয় তবে ব্যাটারির আয়ু বাড়ে। বর্তমানে বেশির ভাগ চার্জারে মাইক্রোইউএসবি পোর্ট দেয়া থাকে। এর ফলে যেকোন চার্জার দিয়ে চার্জ দেওয়া যায়। যদি চার্জিং এর সময় ফোনের নিজেস্ব চার্জার ব্যবহার না করা হয় তবে ধীরে ধীরে ব্যাটারির চার্জ ধরে রাখার ক্ষমতা কমতে থাকে। কারণ ফোনের চার্জার আউটপুট ইনপুট ক্ষমতা ফোনের সাথে সামঞ্জস্য বজায় রেখে তৈরি করা হয়।

কমদামি চার্জার দ্বারা চার্জ দেওয়া থেকে বিরত থাকাঃ

ফোনের চার্জার যেকোন কারণে হরিয়ে যাওয়া, নষ্ট হওয়া বা অনত্র কোথায় যেয়ে ফোন চার্জ করার ক্ষেত্র আমরা এই ভূলটি করে থাকি। অনেক সময় পরিস্থিতির স্বীকার হয়ে কমদামি চার্জার দ্বারা চার্জ দেওয়া হয়। এক্ষেত্রে মোবাইলে নূন্যতম চার্জ যেটা না হলেই নয় এমন চার্জ দিন।

চার্জার নষ্ট হলে নিজেস্ব কাস্টোমার কেয়ার থেকে অর্জিনাল চার্জার ক্রয় করুন। অটো চার্জার থেকে বিরত থাকুন।

চার্জ দেওয়ার সময় মোবাইল কেস খুলে রাখাঃ

যখন ফোন চার্জে দেওয়া হয় তখণ ব্যাটারি কিছুটা গরম হয়ে যায়। এই গরম ভাব মোবাইলে ছরিয়ে পরে খুব দ্রুত। যদি মোবাইল বডি স্লিম এবং Aluminum হয় তবে গরমের পরিমানটা একটু বেশি হতে পারে। সেক্ষেত্রে মোবাইলের কেস বা কাভার খুলে চার্জ দিন।নিদ্দিষ্ট তাপ মাত্রার উদ্ধে গরম হলে ব্যাটারির আয়ু কমতে থাকে।

অভার চার্জ না দেওয়াঃ

অভার চার্জ। আমরা এই ভুলটি প্রায়ই করে থাকি। ব্যাটারির আয়ু কমার অন্যতম প্রধান কারণ হল অতিরিক্ত চার্জ দেওয়া। ১০০% হবার পর চার্জার খুলে রাখাটা খুব জরুরি।  আমরা অনেকেই রাতের ঘুমানোর আগে চার্জে দিয়ে ঘুমিয়ে পরি। এতে ব্যাটারীতে অতিরিক্ত চার্জ হয়ে বিস্ফরনের মত  মারাত্মক ঘটনা ঘটতে পারে।

এপ্লেকিশন নির্বাচনঃ

আমরা অনেক থার্ডপার্টি এ্যাপস ব্যবহার করি। যা ব্যাকগ্রউন্ডে কাজ করে। এই ধরনের এ্যাপ থেকে বিরত থাকতে হবে।

ব্যাটারি সেভার এ্যাপস নির্বাচনঃ

অনেকেই আমরা ব্যাটপরি সেভার এ্যাপস ব্যবহার করি। সব ধরনের  ব্যাটারি সেভার এ্যাপ সঠিক ভাবে কাজ করে না। বড়ং এই ব্যাক সাইটে ব্যাটারি খরচ করে। সর্বোত্তম হবে ফোনের সাথের ব্যাটারি সেভার এ্যাপস ব্যবহার করা।

হোম স্কিন নির্বাচনঃ

হোম স্কিনে কালো ব্যাকগ্রাউন্ড যু্ক্ত ওয়াল পেপার ব্যবহার করুন। এতে আপনার ব্যাটারির চার্জ কিছুটা হলে ও বৃদ্ধি পাবে। হোম স্কিনে এনিমিশন বা লান্সার থেকে বিরত থাকুন।

কখন ব্যাটারি চার্জ দিবেন

আমরা একটা বড় ভুল করি সেটা হল লিথিউম বেইজড ব্যাটারি পুরোপুরি ডিসচার্জ করে ফেলি। এতে ব্যাটারির আয়ুকমে যায়।

ব্যাটারির চার্জ ২০% এর নিচে আসার পর চার্জ দিন। এতে আপনার ব্যাটারির উপর চাপ কম পরবে।  চার্জ ৩% এর নিচে আসলে মোবাইল অফ করে দিন।

পাওয়ার অন অফঃ

অযথা ফোনের পাওয়ার অন অফ করবেন না। ফোন অন অফ অথবা রিবোর্ট রিস্টার্ট করলে ব্যাটারির উপর এক্সট্রা চাপ পরে। যেটা ব্যাটারির হেল্থের জন্য মোটেও ভালো নয়।

চার্জ অবস্থায় নেট ব্রাউজিংঃ

চার্জ অবস্থায় নেট ব্রাউজিং থেকে বিরত থাকুন। বর্তমানে 4G  নেটওয়ার্ক টেকনোলজিতে প্রচুর পরিমান শক্তি প্রয়োজন হয়। এর ফলে ব্যাটারির চার্জ অবস্থায় নেট ব্রাউজিং করা হলে ব্যাটারি উপর চাপ সৃ্ষ্টি হয়ে থাকে। এর ফলে অতিরিক্ত তাপ সৃষ্টি হয়। এমনকি বিস্ফরণ ঘটার সম্ভাবনা থাকে।

নেটওয়ার্ক রেঞ্জের বাইরে না থাকাঃ

মোবাইলের নেটওয়ার্ক প্রচুর পরিমান ব্যাটারি সোশন করে। যদি নেটওয়ার্ক রেঞ্জের বাইরে মোবাইলটি রাখা হয় তবে বার বার ব্যাকগ্রাউন্ডে নেটওয়ার্ক সার্চিং করে যার ফলে এক্সট্রা শক্তি শোসন করে। নেটওয়ার্ক রেঞ্জের বাইরে থাকলে সিম অফ করে রাখুন অথবা এয়ার প্লেন মোড অন করে রাখুন।

 

তাছাড়া মোবাইল ক্রয়ের সময় ব্যাটারির দিকে লক্ষ রেখে ক্রয় কর। সবদিক যাচাই বাচাই করে কিছু রিভিউ দেখে মোবইল ক্রয় করুন।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *