Breaking News

আপনি কি বেকার সময় কাটাচ্ছেন? ভালো চাকুরীর সুযোগ মিলছে না? তবে নিজেই নিজের কর্মসংস্থান গড়ে নিন অনলাইনে টাকা উপার্জন করার মাধ্যমে..

অনলাইনে টাকা উপার্জনের কথা আমরা কম বেশি সবাই শুনেছি। বর্তমানে অনলাইনে মাধ্যমে কিভাবে ও কোন কোন উপায়ে অর্থ উপার্জন করা যায় বাংলাদেশে এই ব্যাপারটা সবার কাছে জনপ্রিয়। আমাদের দেশের বেকার সমাজকে কর্মসংস্থানে সুযোগ করে দিতে অনলাইনের ভুমিকা অত্যন্ত ব্যাপক। আমাদের মধ্যে অনেকেই আছে যারা স্টুডেন্ট লাইফেই প্রতি মাসে হাজার হাজার টাকা উপার্জন করেন।

অনলাইনে ইনকাম করতে কোন প্রাতিষ্ঠানিক যোগ্যতার প্রয়োজন নেই। প্রয়োজন শুধু ইংরেজি জানা আর বেসিক কম্পিউটার সম্পর্কে ভালো ধারনা এবং কোন একটি কাজের উপর খুব ভালো দক্ষ হওয়া। যেমন: ধরুন আপনি ভালো ইংলিশ জনেন। নিমিষেই যেকোন টপিকের উপর ৩০০-১০০ ওয়ার্ডের প্যারাগ্রাফ লিখতে পারেন। হ্যাঁ আপনার জন্য কাজের অভাব নেই। আপনি প্রতি মাসে ৭০০-১০০০ ডলার উপার্জন করতে পারেন।

তবে অনলাইনে কাজ করতে হলে আপনা প্রয়োজন প্রচুর ধর্য আর নিজের উপর ভরসা। কখনো নিরাস হবে না। একদিন না একদিন আপনি পারবেন। তবে একটু সময় লাগবে যদি আপনি একদমই নতুন হয়ে থাকেন।

তবে দেরি না করে আজই শুরু করুন। সেখার জন্য চেষ্টা করুন। অনলাইনে কাজ করার জন্য আপনার কোন অতিরিক্ত শিক্ষক প্রয়োজন নাই। যদি কিনা আপনার লক্ষ ঠিক থাকে। আপনার শিক্ষক আপনার জন্য অপেক্ষা করছে অনলাইনেই। শিক্ষকের নাম “Youtube” যেখানে হাজার হাজার উপায় আছে ইনকাম করার। ইউটিউবের পর আছে “Blog Site”  ব্লগ পরুন নতুন নতুন অনেক উপায় পাবেন। তবে সবকিছুরই ভালো খারাপ রয়েছে ঠিক তেমনি অনলাইনেও ভালো খারাপ রয়েছে। খারাপ থেকে বিরত থাকুন। অবৈধ উপায় থেকে আপনি হয়তো খুব তারা তারি টাকা উপর্জন করতে পারবেন তবে সেটা ক্ষণিক সময়ের জন্য। যেমন: বেটিং, মালওয়ার জনিত এ্যাডস, পর্ণ সাইট ইত্যাদি।

আসুন জেনে নেই অনলাইনে উপার্জন করার কিছু পদ্ধতি:

ইউটিউব থেকে আয়:

ইউটিউব একটি জনপ্রিয় ভিডিও শেয়ারিং সাইট যেখানে আপনি নতুন নতুন ভিডিও তৈরি করে প্রতি মাসে ২০,০০০-২৫,০০০ টাকা উপার্জন করতে পারেন। শুধুমাত্র এটি ইউটিউব চ্যানেল খুলুন নতুন নতুর ভিডিও আপলোড করুন। আর প্রচুর পরিমান শেয়ার করুন। যত ভিডিও শেয়ার করবেন তত ইনকাম বাড়বে। কপি করা কোন ভিডিও ইউটিউব গ্রহন করবে না। অবশ্যাই ইউনিক হতে হবে আপনার ভিডিওটি। সবথেকে ভালো উপায় নিজে নিজে আর্কষনীয় ভিডিও তৈরি করুন।

বাংলা ব্লগ থেকে ইনকাম: আপনি যদি ভালো লেখা লেখি করতে পারেন তো ব্লোগ আপনার জন্য খুব ভালো ইনকাম সোর্স। ব্লোগ থেকে প্রতি মাসে ৫০,০০০- ১,০০,০০০ টাকা ইনকাম করা সম্ভব। তবে এই রকম ইনকাম করতে হলে ধর্য্যের প্রয়োজন। একবারে তা সম্ভব নয়। আস্তে আস্তে ইনকামের পরিমান বাড়বে। ব্লগ থেকে ইনকাম করা খুব বেশি কঠিন কিছু না। একটি ওয়েব সাইট তৈরি করুন । লেখা-লেখি শুরু করুন। গুগল এডসেন্সের (Google Adsense) মাধ্যমে এড বসিয়ে টাকা উপার্জন করুন। ওয়েব সাইট তৈরি করতে খুব বেশি টাকার প্রয়োজন হয় না। মাত্র ৩,৫০০-৪,০০০ টাকার মধ্যে আপনি ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারেন। ওয়েব সাইট তৈরি করতে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন। আমাদের সাথে যোগাযোগ করতে এখানে ক্লিক করুন

 

আর্টিকেল লিখে ইনকাম করতে পারেনঃ

আমি পূর্বেই বলেছিলাম আপনি যদি খুব ভালো ইংরেজীতে লেখালেখি করতে পারেন তো আপনার জন্য অপেক্ষা করছে অনেক সুযোগ। আমদেরদেশ ব্যাতিত অনেক দেশের ব্যবসায়িরা তাদের প্রডাক্ট বিক্রয় করে ব্লগিং এর মাধ্যমে। আর তারা তাদের ব্লগের জন্য আর্টিকেল রাইটার খোজেন। অনেকে আবার নিজের পার্সোনাল ব্লগের জন্য রাইটার খোজেন। রাইটার হায়ার করা জন্য অনলাইনে অনেক প্লাটফর্ম ও রয়েছে যারা আপনাকে কাজ যোগার করতে সাহায্য করবে।

 ইন্টারনেট সার্ভে করে আয়

একটি কোম্পানীর অগ্রগতির জন্য তাদের সম্পর্কে ক্রেতা ও সাধারণ মানুষ কি ভাবছে এটা জানা অনেক বেশি প্রয়োজনীয়। এর ফলে নিজেদের অভ্যন্তরীণ ত্রুটি গুলো শুধরে নিয়ে নেয়া যায় একদিকে, অন্যদিকে এর ফলে তাদের পণ্য বা সেবার বিক্রিও বেড়ে যায় বহুগুনে। এজন্য এসব কোম্পানীগুলি গ্রাহক পর্যায় থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষকের মতামত পাওয়ার জন্য বিভিন্ন ধরণের সার্ভে করিয়ে থাকে।

সার্ভের মূল উদ্দেশ্যই হলো একটি কোম্পানীর বর্তমান বাজারে প্রতিচ্ছবি কিরুপ তা পরিষ্কার করা। আর আপনি জেনে অবাকই হবেন যে এসব সার্ভে কাজের জন্য কোম্পানীগুলো ভালো পরিমাণে অর্থ ব্যায় করে থাকে। আপনিও ইচ্ছা করলে এ ধরণের কোম্পানীর সার্ভে কাজগুলি করে আয় করতে পারেন। তবে এক্ষেত্রেও সাবধান থাকাটা জরুরী। কারণ ইন্টারনেটে এ ধরণের সার্ভে কাজ পাওয়ার মত হাজার হাজার ওয়েব সাইট থাকলেও হাতে গোনা মাত্র কয়েকটি ওয়েবসাইট আছে যারা সৎভাবে পেমেন্ট করে থাকে। তাই সাবধান না হয়ে কাজ করলে লাভের বদলে প্রতারিত হবার সম্ভবনাটাই বেশি থাকবে।

 

এফিলিয়েট মার্কেটিং থেকে আয়ঃ

এফিলিয়েট মার্কেটিং হলো কোন কোম্পানি বা অনলাইন শপ থেকে কোন পণ্য বিক্রয় করে টাকা উপার্জন করা। অনলাইনে অনেক ই-কমার্স সাইট আছে যারা তাদের পন্য বিক্রয় করিয়ে দেওয়ার বিনিময় কমিশন প্রদান করে। যেমনঃ এমাজন, আলি বাবা, ডারাজ ইত্যাদি। আপনি যত প্রোডাক্ট সেল করিয়ে দিতে পারবেন ততই কমিশন পাবেন। এখানে ইনাকাম নির্ভর করবে তাদের প্রোডাক্ট সেল করার উপর।

 

এছাড়াও আপনি যদি কোন নির্দিষ্ট কাজের উপর দক্ষ হন তবে আপনি ফ্রিলান্সিং মার্কেট প্লেস থেকে টাকা উপার্জন করতে পারেন। যেমনঃ গ্রাফিক্স ডিজাইন, ওয়েব ডেভোলপমেন্ট, এসইও, ডিজিটাল মার্কেটিং, ল্যাংগুয়েজ ট্রানস্লেট ইত্যাদি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *